অন্যান্য

স্ন্যাপড্রাগন চিপসেটের জীবনকাহিনী (পর্ব-৩)

স্ন্যাপড্রাগনের জীবন কাহিনীর ৩য় পর্বে আপনাকে স্বাগতম!

স্ন্যাপড্রাগন ৬০০ সিরিজ- যাকে গরীবের ফ্ল্যাগশিপ সিরিজও বলা যায়। ২০০ ও ৪০০ সিরিজ পার করে এসে আজ কথা বলবো কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন ৬০০ সিরিজ নিয়ে। ৬০০ সিরিজে এখন পর্যন্ত মোট ১৬টি চিপসেট রয়েছে; এগুলো হলো – স্ন্যাপড্রাগন ৬০০, ৬১০, ৬১৫, ৬১৬, ৬১৭, ৬২৫, ৬২৬, ৬৩০, ৬৩২, ৬৩৬, ৬৫০, ৬৫২, ৬৫৩, ৬৬০, ৬৭০ ও ৬৭৫। লোয়ার মিড-রেঞ্জ, মিড-রেঞ্জ এবং আপার মিড-রেঞ্জ সবখানেই স্ন্যাপড্রাগন ৬০০ সিরিজের রাজত্ব বিদ্যমান। তো চলুন ৬০০ সিরিজের কিছু জনপ্রিয় চিপসেটের স্পেকস দেখে নিই।

স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫:

  • Octa Core Cortex A53 2.0 GHz (14nM)
  • Adreno 506 GPU
  • LPDDR-3 Ram
  • X9 LTE modem Max download & upload speed 300Mbps & 75 Mbps
  • Up to 13 MP Dual camera & up to 24MP Single camera supported
  • 4K @ 30fps video recording & playback supported
  • Bluetooth 4.1 & 2.4 GHz Wi-Fi
  • QC 3.0 supported

স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬:

  • Octa-Core Kryo 260 1.8 GHz (14nm)
  • Adreno 509 GPU
  • Ram-LPDDR-4/4x up to 8GB @ 1333 MHz
  • X12 LTE modem Max download & upload speed 600Mbps & 150 Mbps
  • Up to 16 MP Dual camera & up to 24MP Single camera supported
  • Dual spectra 160 ISP; Hybrid Autofocus & Optical Zoom supported
  • 4K @ 30fps & 1080p @ 120fps video recording & playback supported
  • Bluetooth 5.0 ; 2.4 GHz & 5 GHz Wi-Fi
  • QC 4.0 supported

স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০:

  • Octa Core Kryo 260 1.8 GHz (14nM)
  • Adreno 512 GPU
  • Ram-LPDDR-4 up to 8GB @1866 MHz
  • X12 LTE modem Max download & upload speed 600Mbps & 150 Mbps
  • Up to 16 MP Dual camera & up to 25MP Single camera supported
  • Dual Spectra 160 ISP; Hybrid Autofocus & Optical Zoom supported
  • 4K @ 30fps & 1080p @ 120fps video recording & playback supported
  • Bluetooth 5.0 ; 2.4 GHz & 5 GHz Wi-Fi
  • QC 4.0 supported

৬০০ সিরিজের চিপসেটগুলো একইসাথে ভালো পারফর্ম্যান্স এবং ভালো ব্যাটারি ব্যাকআপের জন্য ইউজারদের কাছে খুবই জনপ্রিয়।

প্রথমত স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫-এর কথায় আসি, ৬০০ সিরিজের বহুল ব্যবহৃত চিপসেট গুলোর মধ্যে স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ অন্যতম। বিশেষত চায়নিজ ব্র্যান্ড শাওমি তাদের এতো ফোনে এই ৬২৫ চিপসেট ব্যবহার করেছে যে তাদেরকে গুনে শেষ করতে হলে বেশ খানিকটা সময়ের প্রয়োজন। ডিসেন্ট পারফরমেন্স, গুড গেমিং গ্রাফিক্স দিয়ে এটি একদম নরমাল থেকে হেভি ইউজার সবাইকেই সন্তুষ্ট রাখতে পারে। ১৪ ন্যানো মিটার প্রসেসে এর চিপ হওয়াতে ৩০০০ মিলিয়াম্পিয়ারের ব্যাটারির সাথে স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ একজন মিডিয়াম ইউজারকে খুব সহজেই ১দিন ব্যাটারি ব্যাকআপ দিতে পারে। অর্থাৎ বলা যেতে পারে যে স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ সব দিক থেকে মোটামুটি ব্যালান্সড একটি চিপসেট।

এরপর আসি স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬ চিপসেটের কথায়, এই চিপসেটটি স্ন্যাপড্রাগন ৬২৫ এর থেকে বেশি কিন্তু ৬৬০ এর থেকে কম পাওয়ারফুল। ১৪ ন্যানো মিটার প্রসেসের স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬ কোয়ালকমের নিজস্ব কাষ্টম আর্কিটেকচার সেকেন্ড জেনারেশনের Kryo 260 এর উপরে ভিত্তি করে বানানো বলে এটি একই সাথে বেশ শক্তিশালী এবং পাওয়ার এফিসিয়েন্ট। ৪০০০ মিলিয়াম্পিয়ারের একটি ব্যাটারির সাথে এই স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬ চিপসেট আপনাকে দিতে পারে ১.৫-২ দিনের ব্যাটারি ব্যাকআপ। সাথে সাথে এই আপনাদের দৈনন্দিন কাজ, মাল্টি টাস্কিং, হেভি ইউজ বেশ ভালোভাবেই সামলাতে সক্ষম। গেমাররাও স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬ এর উপরে মোটামুটি অত্যাচার চালাতে পারবেন। এককথায় বলতে গেলে, স্ন্যাপড্রাগন ৬৩৬ হচ্ছে ৬২৫ এর আপডেট ভার্সন এবং মিড-রেঞ্জের জন্যে পারফেক্ট একটি চিপসেট।

এবার আসা যাক স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ এ, ৬৬০ কে বলা যায় নিয়ার ফ্ল্যাগশিপ চিপসেট। এমনকি প্রথমদিকে স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ রিলিজের পর CPU-z অ্যাপ ও ৬৬০ কে স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ দেখিয়েছিলো, কারন দুটো চিপসেটের আর্কিটেকচার একদম একই। গেমারদের নির্যাতন সহ্য করার জন্যে পারফেক্ট একটি চিপসেট স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০। মিডরেঞ্জে ব্রিলিয়ান্ট পারফরমেন্স, ভালো গ্রাফিক্সের জন্যে হেভি ইউজার ও গেমারদের কাছে স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ খুবই জনপ্রিয়। বেশ পাওয়ারফুল হওয়ার পরেও ৩০০০ মিলিয়ামপিয়ারের একটি ব্যাটারির সাথে মোটামুটি একদিন ব্যাটারি ব্যাকআপ পেয়ে যাবেন এর Kryo 260 আর্কিটেকচার ও ১৪ ন্যানো মিটার প্রসেসের জন্য। তাই বলাই যায় স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ মিড-রেঞ্জ ফোনেই অফার করছে ফ্ল্যাগশিপ এক্সপেরিয়েন্স।

এটুকু পড়ে হয়ত বুঝেই গিয়েছেন, স্ন্যাপড্রাগন ৬০০ সিরিজের প্রায় সব চিপসেটই বেশ পাওয়ারফুল। নরমাল, মিডিয়াম, হেভি ইউজার, গেমার সবার চাওয়া-পাওয়া-ই কম-বেশি পূরণ করতে সক্ষম এই ৬০০ সিরিজ। মিড-রেঞ্জ ফোনে স্ন্যাপড্রাগন ৬০০ সিরিজের চিপসেট আপনাকে যা দিবে অন্য কোনো SoC তা দিবে না এ কথা বলাই যায়। তাই ১৫-৩০ হাজার টাকার মধ্যে স্ন্যাপড্রাগন ৬০০ চিপসেটের যেকোনো ফোনের অন্য কিছু নিয়ে চিন্তা করুন আর না করুন, পারফরমেন্স ও ব্যাটারি ব্যাকআপ নিয়ে নিশ্চিন্তে থাকতে পারবেন।

আজ এইপর্যন্তই; সামনে আসছি ৭০০ ও ৮০০ সিরিজ নিয়ে। আগের পর্বগুলো দেখতে চাইলে ক্লিক করুন – পর্ব-১ এবং পর্ব-২ । আর্টিকেলটি ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। এছাড়াও জয়েন করতে পারেন আমাদের ফেসবুক গ্রুপ, পেজ এবং ইন্সটাগ্রামে। আর অবশ্যই আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করতে ভুলবেন না।

 

Avatar

Russell Hossain